কর্মস্থলে গ্রীণ পাস বাধ্যতামূলক : যা জানা প্রয়োজন

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on telegram

১৫ অক্টোবর ২০২১ হতে, সরকারী ও বেসরকারী সকল শ্রমিকদের, স্বীয় কর্মস্থলে প্রবেশের জন্য গ্রীণ পাস(সবুজ সার্টিফিকেট) থাকতে হবে। নিম্নোক্ত ব্যতিক্রমসমূহ ব্যতিরেকে :

  • স্বাস্থ্যগত কারণে যেসব ব্যক্তিরা টিকা গ্রহণ করতে অসমর্থ : এক্ষেত্রে নিয়মিত মেডিকেল সার্টিফিকেট প্রদর্শন করতে হবে। যাই হোক, তারা বিনামূল্যে টেস্ট করানোর সুযোগ পাবে।
  • যারা সবসময় স্মার্টওয়ার্কিং এর কাজ করে।

যেসব শ্রমিকদের গ্রীণ পাস নেই তাদের ক্ষেত্রে কি ঘটবে

  • সরকারী খাতের শ্রমিকদের জন্য : যারা কর্মক্ষেত্রে প্রবেশের সময় গ্রীন পাস উপস্থাপন করবেন না তাদের সবুজ সার্টিফিকেট উপস্থাপন না করা পর্যন্ত তা অহেতুক অনুপস্থিতি (কর্মসংস্থান সম্পর্ক বজায় রাখার অধিকার সহ) হিসেবে বিবেচিত হবে। কর্মস্থলে পাঁচ দিন অনুপস্থিতির পরে, সম্পর্কটি স্থগিত হিসাবে বিবেচিত হবে এবং সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে অনুপস্থিতির প্রথম দিন থেকে বেতন দেওয়া হবে না। 
  • বেসরকারী খাতের শ্রমিকদের জন্য : যাদের গ্রীন পাস নেই, তারা গ্রীন পাস উপস্থাপন না পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট দিনগুলি পারিশ্রমিকের অধিকারবিহীন (কর্মসংস্থান সম্পর্ক বজায় রাখার অধিকারসহ) অনুপস্থিতি বলে বিবেচিত হবে। ১৫ জনের কম সংখ্যক কর্মচারীসম্পন্ন এজেন্সি/কোম্পানির ক্ষেত্রে, নিয়োগকর্তা গ্রীণ পাস ছাড়াই অস্থায়ীভাবে কর্মীদের প্রতিস্থাপন করতে পারবেন- এই মর্মে একটি রেগুলেশন/নিয়ম প্রচলিত রয়েছে 

কর্মস্থলে কে চেক করে?

নিয়োগকর্তা কর্তৃক চেকের কাজ সম্পাদিত হবে : ১৫ অক্টোবরের মধ্যে চেক করার নিজস্ব পদ্ধতি নির্ধারণ করতে হবে। চেক করার সংশ্লিষ্ট কার্যাবলী সম্ভব হলে কর্মস্থলে প্রবেশের সময় করাটা বাঞ্ছনীয়, অন্যথায় নমুনার ভিত্তিতে করতে হবে।

যেসব গ্রাহক তাদের বাড়িতে কর্মী প্রবেশ করান (যেমন প্লাম্বার, ইলেকট্রিশিয়ান বা অন্যান্য টেকনিশিয়ান), তাদের গ্রীন পাস চেক করতে হবে না, কারণ তারা নিয়োগকর্তা নন কিন্তু পরিষেবা ক্রয় করছেন। এটা স্পষ্ট যে, তাদের গ্রীন পাস দেখাতে বলার অধিকার আছে।

জরিমানা ও নিষেধাজ্ঞা সরকারি বেসরকারি উভয় ক্ষেত্রেই যেসব কর্মীরা গ্রীণ পাস/সবুজ পাসের বাধ্যবাধকতা লঙ্ঘন করে কর্মস্থলে প্রবেশ করেছেন তাদের জন্য ৬০০ থেকে ১৫০০ ইউরোর জরিমানা রয়েছে।

তাম্পোনে কাল্মিয়েরাতি 

তাম্পোনে করার মাধ্যমেও গ্রীণ পাস পাওয়া যেতে পারে (বৈধতা র‍্যাপিড টেস্টের জন্য ৪৮ ঘণ্টা ও মোলেকোলারের জন্য ৭২ ঘণ্টা)।  যেসব ফার্মেসি দ্রুত অ্যান্টিজেনিক টেস্ট করে এবং সমঝোতা স্মারকে/প্রোটকললো ইন্তেন্সো যোগদান করেছে তাদের নিয়ন্ত্রিত মূল্য রয়েছে : ১৮ বছরের বেশি বয়সের জন্য ১৫ ইউরো এবং অপ্রাপ্তবয়স্কদের জন্য ইউরো (১২ থেকে ১৮ বছরের মধ্যে)

aiuti sociali

আসেনিও উনিকো উনিভার্সালে এখন তাদের জন্যেও , যাদের এত্তেসা দি অকুপাসাণে পেরমসৌ দি সজোর্ণ আছে

গত সেপ্টেম্বর এর ১৯ তারিক ২০২৩ থেকে , টরেন্ট যশোরের ট্রাইবুনাল সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে যাদের এত্তেসা দি অকুপাসাণে কাগজ হয়েছে তাদের ও আসেনিও উনিকো উনিভার্সালের

 1,451 Visite totali,  4 visite odierne

Continua a leggere »