Categories
Asilo e immigrazione Covid Regole e comportamenti Salute

জাতীয় স্বাস্থ্য পরিষেবায় অনিবন্ধিত ব্যক্তি বা যার স্যানিটারি কার্ড নেই সে কিভাবে গ্রীণ পাস পেতে পারে

টিকা গ্রহণকারী যেসকল ব্যক্তি জাতীয় স্বাস্থ্য পরিষেবায় নিবন্ধিত নয়, বা যাদের ইলেক্ট্রনিক আইডেন্টিটি কার্ড, স্যানিটারি কার্ড, স্পিড বা ইঅ অ্যাপ নেই, তারা নিম্নলিখিত পদ্ধতি অনুসরণের মাধ্যমে গ্রীণ পাস ডাউনলোড করতে পারবেন :

১। https://www.dgc.gov.it/web/ এই ওয়েবসাইটে প্রবেশ করণপূর্বক “তেসসেরা সানিতারিয়া(“Tessera Sanitaria”)” অংশে ক্লিক করুন;richiedere il green pass

২। স্ক্রীণে যা দেখা দিবে সেখান থেকে যার যার প্রয়োজন মোতাবেক অপশন নির্ধারণ করতে হবে, যেমন – “সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি জাতীয় স্বাস্থ্য পরিষেবা”য় নিবন্ধিত নয় কিন্তু ইতালিতে টিকা গ্রহণ করেছে” (অথবা স্যানিটারি কার্ড নেই বা বিদেশে টিকা নিয়েছে” যদি সে আউথকোড এর অধিকারী হয়), বিভিন্ন ধাপ পূরণপূর্বক “রেকুপেরা চের্তিফিকাচ্ছিয়নে” অংশে ক্লিক করতে হবে

৩। “টিএস সিস্টেম কর্তৃক নির্ধারিত ফিসক্যাল কোড বা সনাক্তকরণ” ক্ষেত্রটি পূরণ করুন

দৃষ্টি আকর্ষণ : আপনাকে কেবল সংখ্যাসূচক কোড নয় বরং বর্ণানুক্রমিক কোডটিও (এসটিপি/STP বা এএনআই/ENI) লিখতে হবে যাতে কোডটির দৈর্ঘ্য সাধারণ ফিসকাল কোডের সমান হয়, অন্যথায় কম্পিউটার সিস্টেম কোডটি চিনতে অসমর্থ হবে ।

উদাহরণ : এসটিপি১২৩৪৫৬৭৮৯ (গ্যাপ না রেখে কোডটি টাইপ করতে হবে) 

উদাহরণ : এএনআই১২৩৪৫৬৭৮৯ (গ্যাপ না রেখে কোডটি টাইপ করতে হবে) 

  • তারপর টিকা দেওয়ার তারিখ সার্টিফিকেটে লিখুন। 
  • ড্রপ ডাউন মেনু হতে সার্টিফিকেটের ভাষা নির্ধারণ করুন 
  • নিরাপত্তা কোড লিখুন (যেটি প্রতিটি অ্যাক্সেসের সাথে পরিবর্তিত হয়) 
  • গ্রীণ পাসের পিডিএফ ফরম্যাট ডাউনলোডের জন্য “রেকুপেরা চের্তিফিকাচ্ছিয়নে” অংশে ক্লিক করতে হবে।

বিশেষ দ্রষ্টব্য : টিকা দেওয়ার কমপক্ষে ১৪ দিন পরে প্রক্রিয়াটি অনুসরণ করার পরামর্শ দেয়া হচ্ছে; দ্বিতীয় ডোজের ক্ষেত্রে, ৩-৪ দিন যথেষ্ট হতে পারে।

যদি এই পদ্ধতি অনুসরণ করা সত্ত্বেও, আপনি গ্রীন পাস ডাউনলোড করতে না পারেন, তাহলে নিম্নে প্রদত্ত ক্ষেত্রসমূহে যোগাযোগ করতে পারেন

  • এসাইলামের আশ্রয়প্রার্থী ও শরণার্থীদের জন্য টোল ফ্রি নম্বর (আর্চি)৮০০ ৯০৫ ৫৭০ – লাইকামোবাইল: ৩৫১১৩৭৬৩৩৫
  • পাবলিক ইউটিলিটি নম্বর ১৫০০ (প্রতিদিন সক্রিয়, ২৪ ঘন্টা) কোভিড১৯ এর গ্রীন সার্টিফিকেট সম্পর্কিত তথ্য এবং সহায়তার জন্য।
  •  জাতিগত বৈষম্যের বিরুদ্ধে জাতিসংঘের ইউএনএআর প্রতিবেদন পাঠানোর জন্য সংশ্লিষ্ট লিংকের মাধ্যমে ফরম পূরণ করুন বা ৮০০ ৯০ ১০ ১০ টোল ফ্রি নম্বরে ফোন করুন 

(সূত্র: বিনারিও৯৫আভভোকাতো দি স্ত্রাদা)

Categories
Covid Evidenza Lavoro Regole e comportamenti Salute

কর্মস্থলে গ্রীণ পাস বাধ্যতামূলক : যা জানা প্রয়োজন

১৫ অক্টোবর ২০২১ হতে, সরকারী ও বেসরকারী সকল শ্রমিকদের, স্বীয় কর্মস্থলে প্রবেশের জন্য গ্রীণ পাস(সবুজ সার্টিফিকেট) থাকতে হবে। নিম্নোক্ত ব্যতিক্রমসমূহ ব্যতিরেকে :

  • স্বাস্থ্যগত কারণে যেসব ব্যক্তিরা টিকা গ্রহণ করতে অসমর্থ : এক্ষেত্রে নিয়মিত মেডিকেল সার্টিফিকেট প্রদর্শন করতে হবে। যাই হোক, তারা বিনামূল্যে টেস্ট করানোর সুযোগ পাবে।
  • যারা সবসময় স্মার্টওয়ার্কিং এর কাজ করে।

যেসব শ্রমিকদের গ্রীণ পাস নেই তাদের ক্ষেত্রে কি ঘটবে

  • সরকারী খাতের শ্রমিকদের জন্য : যারা কর্মক্ষেত্রে প্রবেশের সময় গ্রীন পাস উপস্থাপন করবেন না তাদের সবুজ সার্টিফিকেট উপস্থাপন না করা পর্যন্ত তা অহেতুক অনুপস্থিতি (কর্মসংস্থান সম্পর্ক বজায় রাখার অধিকার সহ) হিসেবে বিবেচিত হবে। কর্মস্থলে পাঁচ দিন অনুপস্থিতির পরে, সম্পর্কটি স্থগিত হিসাবে বিবেচিত হবে এবং সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে অনুপস্থিতির প্রথম দিন থেকে বেতন দেওয়া হবে না। 
  • বেসরকারী খাতের শ্রমিকদের জন্য : যাদের গ্রীন পাস নেই, তারা গ্রীন পাস উপস্থাপন না পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট দিনগুলি পারিশ্রমিকের অধিকারবিহীন (কর্মসংস্থান সম্পর্ক বজায় রাখার অধিকারসহ) অনুপস্থিতি বলে বিবেচিত হবে। ১৫ জনের কম সংখ্যক কর্মচারীসম্পন্ন এজেন্সি/কোম্পানির ক্ষেত্রে, নিয়োগকর্তা গ্রীণ পাস ছাড়াই অস্থায়ীভাবে কর্মীদের প্রতিস্থাপন করতে পারবেন- এই মর্মে একটি রেগুলেশন/নিয়ম প্রচলিত রয়েছে 

কর্মস্থলে কে চেক করে?

নিয়োগকর্তা কর্তৃক চেকের কাজ সম্পাদিত হবে : ১৫ অক্টোবরের মধ্যে চেক করার নিজস্ব পদ্ধতি নির্ধারণ করতে হবে। চেক করার সংশ্লিষ্ট কার্যাবলী সম্ভব হলে কর্মস্থলে প্রবেশের সময় করাটা বাঞ্ছনীয়, অন্যথায় নমুনার ভিত্তিতে করতে হবে।

যেসব গ্রাহক তাদের বাড়িতে কর্মী প্রবেশ করান (যেমন প্লাম্বার, ইলেকট্রিশিয়ান বা অন্যান্য টেকনিশিয়ান), তাদের গ্রীন পাস চেক করতে হবে না, কারণ তারা নিয়োগকর্তা নন কিন্তু পরিষেবা ক্রয় করছেন। এটা স্পষ্ট যে, তাদের গ্রীন পাস দেখাতে বলার অধিকার আছে।

জরিমানা ও নিষেধাজ্ঞা সরকারি বেসরকারি উভয় ক্ষেত্রেই যেসব কর্মীরা গ্রীণ পাস/সবুজ পাসের বাধ্যবাধকতা লঙ্ঘন করে কর্মস্থলে প্রবেশ করেছেন তাদের জন্য ৬০০ থেকে ১৫০০ ইউরোর জরিমানা রয়েছে।

তাম্পোনে কাল্মিয়েরাতি 

তাম্পোনে করার মাধ্যমেও গ্রীণ পাস পাওয়া যেতে পারে (বৈধতা র‍্যাপিড টেস্টের জন্য ৪৮ ঘণ্টা ও মোলেকোলারের জন্য ৭২ ঘণ্টা)।  যেসব ফার্মেসি দ্রুত অ্যান্টিজেনিক টেস্ট করে এবং সমঝোতা স্মারকে/প্রোটকললো ইন্তেন্সো যোগদান করেছে তাদের নিয়ন্ত্রিত মূল্য রয়েছে : ১৮ বছরের বেশি বয়সের জন্য ১৫ ইউরো এবং অপ্রাপ্তবয়স্কদের জন্য ইউরো (১২ থেকে ১৮ বছরের মধ্যে)